জাতীয় পরিচয়পত্রে জন্মস্থান সংশোধন

জন্মস্থান ভুল হওয়ার সম্ভাব্য কারণঃ

ভোটার নিবন্ধনের সময় ৪৬টি বিষয়ে তথ্য প্রদান করতে হয়। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ভোটারের কাছ থেকে শুনে এই তথ্য ফরম পূরণ করে নির্বাচন কমিশন নিযুক্ত তথ্য সংগ্রহকারীগণ। স্কুল শিক্ষক বা কোন অফিসের কর্মচারীরা এই তথ্য সংগ্রহকারীর দায়িত্বে নিয়োজিত থাকেন। কোন কোন তথ্য সংগ্রহকারী নিবন্ধন ফরম পূরণের ক্ষেত্রে স্থায়ী ঠিকানার জেলাকেই ভোটারের জন্মস্থান জেলা হিসেবে পুরণ করে দিয়ে থাকেন। কিন্তু সকলেরই স্থায়ী ঠিকানা আর জন্মস্থান এক নাও হতে পারে। এমনকি স্থায়ী বা অস্থায়ী কোন ঠিকানার সাথেই জন্মস্থান নাও মিলতে পারে। এমনকি কারো জন্ম দেশের বাইরেও হতে পারে। ডাটা এন্ট্রি অপারেটরের ভুল এন্ট্রির কারণেও জন্মস্থান ভুল হতে পারে।

প্লাস্টিক লেমিনেটেড এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্রে জন্মস্থান মূদ্রিত না হওয়ায় স্মার্ট এনআইডি কার্ড পাবার আগ পর্যন্ত অনেকেই জানতো না নির্বাচন কমিশনের তথ্যভান্ডার বা ডাটাবেইজে তার জন্মস্থান কি দেয়া আছে। স্মার্ট এনআইডি কার্ড হাতে পেয়ে অনেকেই দেখছেন বা জানছেন জন্মস্থান হিসেবে তার কার্ডে কি তথ্য মূদ্রিত হয়েছে বা ডাটাবেজে তার জন্মস্থান কি রয়েছে।

কিভাবে সংশোধন করা যায় জাতীয় পরিচয়পত্রে জন্মস্থানঃ

সাধারণত আপনি যে উপজেলা/থানা এলাকার ভোটার আপনাকে সেই উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিসে আবেদন করতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের ফর্মে অন্যান্য এর ঘরে বিদ্যমান জন্মস্থান এবং চাহিত জন্মস্থান লিখে আবেদন করতে হবে। যদি উপজেলা/থানা নির্বাচন অফিস এ ব্যাপারে আবেদন জমা নিতে না পারে, তবে ঢাকার আগারগাঁও এ অবস্থিত নির্বাচন কমিশনের এনআইডি উইং এ (ইটিআই ভবনের ২য় তলায়) এ ব্যাপারে আবেদন করলেও কর্তৃপক্ষ এমন আবেদন বিবেচনা করে থাকে।

জন্মস্থান সংশোধনের আবেদন এর জন্য প্রয়োজনীয় দলিলাদিঃ

জন্ম নিবন্ধন সনদ এবং পাসপোর্ট এ জন্মস্থান লিপিবদ্ধ থাকে। এজন্য যাদের পাসপোর্ট রয়েছে তারা পাসপোর্ট ও জন্মসনদ সংযুক্ত করে জন্মস্থান সংশোধনের জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে পাসপোর্ট না থাকলে শুধু জন্মসনদ দিয়েও জন্মস্থান সংশোধনের আবেদন করা যাবে।

সংশোধনের আবেদন এর জন্য প্রয়োজ্য ফি বা চার্জঃ

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের জন্য আবেদন ফরম পূরণ করে সরকারী ফি প্রদান করে আবেদন জমা দেয়া যায়। ফি জমা দেয়ার জন্য এনআইডি অফিসের নিচতলায় অবস্থিত ব্যাংকের বুথে এই ফি জমা দেয়া যায়। এনআইডির কোন কর্মকর্তা/কর্মচারীর নিকট আবেদন ফি বাবদ কোন নগদ অর্থ জমা দেয়ার নিয়ম নেই। এছাড়া প্রয়োজ্য ব্যাংক ফি ব্যতীত অন্য কোন প্রকারের অর্থ এনআইডি অফিসে গ্রহণ করা হয় না। সংশোধনের ১ম আবেদনের জন্য ভ্যাটসহ ২৩০ টাকা, ২য় আবেদনের ক্ষেত্রে ৩৪৫ টাকা এবং ৩য় বা পরবর্তী যে কোন আবেদনের ক্ষেত্রে ৪৬০ টাকা জমা দেয়ার প্রয়োজন হয়।

জ্ঞাতব্য বিষয়ঃ

জন্মস্থান সংশোধনের জন্য আপনাকে বিদ্যমান কার্ডটি আবেদন ফর্মের সাথে জমা দিতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্রের আরো কোন বর্ণনা ভুল থাকলে একই ফেমে একইসাথে করা যাবে সে সংশোধনও। আবেদন অনুমোদিত হলে আপনি একটি সংশোধিত জাতীয় পরিচয়পত্র পাবেন।তবে একবার স্মার্ট কার্ড পাওয়ার কারণে এই মুহুর্তে আর স্মার্ট কার্ড দিচ্ছে না এনআইডি অনুবিভাগ। আপনার তথ্য সংশোধন হয়ে থাকবে ডাটাবেজে কিন্তু এই মুহুর্তে দেয়া হবে প্লাস্টিক লেমিনেটেড আইডি কার্ড। তবে আরেকটি বিষয় লক্ষনীয় যে, প্রদত্ত প্লাস্টিক লেমিনেটেড কার্ডটিতে জন্মস্থান মূদ্রিত থাকবে না। এছাড়া কার্ডটি পাওয়া যাবে দুই বছর মেয়াদের সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র। প্রদত্ত সাময়িক পরিচয়পত্রটি পরবর্তী দুই বছর মেয়াদান্তে জমা দিয়ে স্মার্ট কার্ড গ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হবে। এছাড়া কার্ডের গায়ে সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র/Temporary National ID Card লেখা থাকলেও সকল কাজই করা যাবে এটি দিয়ে। বর্তমানে প্রদত্ত প্লাস্টিক লেমিনেটেড কার্ড যা সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র হিসেবে দেয়া হয়ে থাকে তাতেও স্মার্ট কার্ডের ১০ সংখ্যার ইউনিক আইডি নম্বর মূদ্রিত থাকবে।

19 Replies to “জাতীয় পরিচয়পত্রে জন্মস্থান সংশোধন”

  1. এন আইডিতে পোস্ট অফিস কোড ভুল হয়েছে, অনলাইন এর মাধ্যমে সংশোধন করতে কি কি ডকুমেন্ট জমা দিতে হবে।
    তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করলে উপকৃত হব।
    অগ্রিম ধন্যবাদ।।।

    1. পোস্ট অফিস ও পোস্ট কোড সঠিক মর্মে দাবীকৃত কোন ডকুমেন্ট হলেই আপনি সেটা সংযুক্ত করে পোস্ট অফিস কোড অনলাইন এর মাধ্যমে সংশোধন করার আবেদন করতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *