সকলেরই থাকা প্রয়োজন এনআইডি পোর্টালের ইউজার একাউন্ট

বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে জাতীয় পরিচয়পত্র একটি অত্যাবশ্যকীয় ডকুমেন্ট যা বিভিন্ন সেবা গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয়। এই ডকুমেন্টটি না দেখাতে পারলে অনেক সেবা গ্রহণই সম্ভব হয় না। শুধু নতুন কার্ড প্রাপ্তি বা জাতীয় পরিচয়পত্র বা তথ্য-উপাত্ত সংশোধন বা হারানো/ডুপ্লিকেট জাতীয় পরিচয়পত্র প্রাপ্তি সংক্রান্ত কাজেই নয়। এনআইডি/ভোটার নিবন্ধন করেছেন এমন সকল বাংলাদেশী নাগরিকদেরই প্রয়োজন এনআইডি অনলাইন সার্ভিস পোর্টালের একাউন্ট বা ইউজার আইডি। কারণ এনআইডি কার্ড রয়েছে বা এনআইডি’র জন্য নিবন্ধন করেছেন তারা অনেকেই দেখেনি এনআইডি তথ্য ভান্ডারে তার তথ্যাবলী কেমনভাবে রয়েছে যা পুরোপুরি নির্ভুল বা আপডেটেড আছে কিনা? আর যদি কোন ভুল থেকে থাকে যা আপনি খেয়াল করেননি হঠাৎ করে প্রয়োজনের সময় সেটা সংশোধন/আপডেট কঠিন হয়ে দাড়াবে যদি সময় নিয়ে প্রক্রিয়া না করেন।

বাস্তবতা

ভোটার বা পরিচয় নিবন্ধনের সময় তথ্য সংগ্রহকারী আপনার তথ্য যেভাবে লিপিবদ্ধ করেছে ডাটা এন্ট্রি করেছে ভিন্ন ব্যক্তি তাই ফরমে প্রদত্ত তথ্য শতভাগ সঠিকভাবে এন্ট্রি করা হয়েছে বা কোন তথ্য ভুল হয়নি এমন নিশ্চয়তা নাই। তাই এনআইডি সিস্টেমে তথ্য কিভাবে রয়েছে এবং বিদ্যমান তথ্য-উপাত্তে কোন আপডেট করতে হবে কিনা তা দেখতে সকল নিবন্ধিত নাগরিকগনেরই উচিত এনআইডি পোর্টালে নিবন্ধন করে তার তথ্যাদি দেখে নেয়া। এছাড়া অনেক বছর আগে প্রদত্ত তথ্য আজকের সময়ানুযায়ী প্রয়োজন হতে পারে আপডেট করার। অনেকেই যখন নিবন্ধন করেছেন তখন পেশায় হয়তো ছিলেন ছাত্র কিন্তু আজ হয়তো আপনি অন্য কোন পেশাজীবী। আবার আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা হয়তো ছিল এইচএসসি কিন্তু আজ স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেছেন। কিন্তু আপনি শিক্ষাগত যোগ্যতার আপডেট না চাওয়ায় আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা রয়ে গেছে আগেরটাই। এছাড়া অনেক সময় তথ্য সংগ্রহকারী ফরম পূরণের সময়ই ভুল করে থাকতে পারে যা আপনি হয়তো যাচাই না করেই স্বাক্ষর করে দিয়েছিলেন। এছাড়া আপনার সেই সময়ের ছবির সাথে বর্তমান আপনার ছবির কোন মিলই নাই বা আগে যেভাবে স্বাক্ষর করেছিলেন এখন পেশাগত জীবনে আপনার স্বাক্ষর চেঞ্জ করেছেন কিন্তু আপনার কার্ডের সাথে তা আমূল পরিবর্তন হয়ে আছে যা কখনও আপনি এভাবে ভেবেই দেখেননি। এছাড়া অনেকেরই ঠিকানা রয়েছে পুরানো। তাই এখন সময় আপনার তথ্য যাচাই করে তা নির্ভুল এবং হালনাগাদ করার ব্যবস্থা করা।

এছাড়া এনআইডি সংক্রান্ত বিভিন্ন সেবা প্রাপ্তির জন্য এনআইডি পোর্টালে নিবন্ধন করে NID সংক্রান্ত সেবা গ্রহণ এবং বিভিন্ন আবেদন ট্র্যাক করতে পারবেন যদি আপনার থাকে এনআইডি পোর্টালে একটি একাউন্ট বা এনআইডি পোর্টালের ইউজার আইডি। জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য ভান্ডার হতে নিজের সমূদয় তথ্যাবলী দেখা, কার্ড হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে গেলে তা পুনরায় উত্তোলন এসবের জন্য আর দারস্থ হতে হয়না নির্বাচন অফিসের। এনআইডি কার্ড বা ডাটাবেজের তথ্যে কোন তথ্য আপডেট বা ভুল সংশোধন, ব্যক্তিগত তথ্য যেমন- শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা, বৈবাহিক অবস্থার পরিবর্তন সবই এখন অনলাইনে যদি আপনার তাকে এনআইডি সিস্টেমে এক্সেস।

সহজেই নিন এনআইডি পোর্টালের ইউজার আইডি

কয়েকটি সহজ ধাপে নিজেই তৈরী করে নেয়া যায় এনআইডি পোর্টালের ইউজার একাউন্ট। প্রথমে “রেজিস্টার”  মেনুতে গিয়ে আপনার এনআইডি নম্বর. মোবাইল নম্বর ও বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানার বিভাগ, জেলা ও উপজেলার তথ্য নির্ভুলভাবে প্রদান করে এনআইডি পোর্টালের জন্য রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে (যদি আগে রেজিস্টার করা না থাকে)। রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলে পরবর্তীতে  “লগইন” মেনুতে গিয়ে ইতোপুর্বে ইউজার রেজিস্ট্রেশনের সময় প্রাপ্ত ইউজার আইডি (সাধারণত এনআইডি নম্বর হয়ে থাকে) ও পাসওয়ার্ড (যদি আপনি পাসওয়ার্ড জেনারেট করে থাকেন) প্রদান করে লগইন করতে হবে। তবে যদি আপনি পাসওয়ার্ড জেনারেট করে না থাকেন তবে প্রতিবার লগইন করতে আপনাকে নতুন একাউন্ট খোলার মত অনেকগুলো তথ্য প্রদান করে তার পরে একাউন্টে ঢুকতে অনুমতি দিবে।

কি প্রয়োজন এনআইডি পোর্টালের ইউজার একাউন্ট?

এনআইডি পোর্টালে একাউন্ট থাকলে এই ইউজার আইডি দিয়ে লগইন করে আপনার ডাটাবেইজের সম্পুর্ন প্রোফাইল দেখতে পারবেন। এতে কোন ভুল থাকলে জানবেন। এছাড়া জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন/ডুপ্লিকেট কপির জন্য আবেদন করতে পারবেন, যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তারা নতুন নিবন্ধনের জন্য এনআইডি অন-লাইন সিস্টেম হতেই আবেদন করতে পারবেন, যারা ইতিমধ্যে নিবন্ধন করেছেন কিন্ত জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি বা এনআইডি কার্ড পাননি, তারা এনআইডি অনলাইন সার্ভিসের জন্য এনআইডি পোর্টালে রেজিস্টার ও লগইন করে ডাউনলোড অপশন হতে জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন বিনামূল্যে।

এছাড়া পূর্বে যাদের ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে সংশোধনের আবেদন জমা দেয়া আছে, আবেদনের হাল অবস্থা জানতে পারবেন এই ইউজার একাউন্টের মাধ্যমে। এমনকি যারা কখনও এনআইডি সংক্রান্ত কোন সার্ভিসের জন্য ইতোপূর্বে আবেদন করেননি তাদের ডাটাবেজের তথ্য কিভাবে আছে তা দেখে নিতে পারেন এনআইডি অনলাইন সার্ভিসে রেজিস্টার করে। এছাড়া কোন তথ্য আপডেট করতে হলে তাও এখন সম্ভব ঘরে বসে অনলাইন এনআইডি সার্ভিসের মাধ্যমে যদি থাকে এনআইডি সার্ভিস পোর্টালের ইউজার আইডি।

সবশেষে

একাউন্ট খোলার পর এর সর্বশেষ ধাপ ফেস রিকগনিশন এর মাধ্যমে আইডি ভেরিফিকেশন। এনআইডিধারী ব্যক্তির তথ্য ব্যবহার করে যাতে অন্য কেউ তার তথ্য দেখতে না পারে এবং তার অজান্তে অন্য কেউ যাতে তার একাউন্টে প্রবেশ করে কোন আবেদন সাবমিট করতে না পারে এজন্য রয়েছে এই ধাপটি। এই ধাপটি সম্পন্ন করতে আপনাকে গুগল প্লে হতে এনআইডি ওয়ালেট নামক মোবাইল এ্যাপস ডাউনলোড করে ফেস ফেরিফিকেশনের মাধ্যমে আপনার আইডি ফেরিফিকেশন করে নিতে হবে। আপনার এনআইডি সার্ভিসেস পোর্টালে প্রবেশ করে সেবা নিতে আপনাকে এনআইডি ওয়ালেট এ্যাপস ওপেন করে এনআইডি পোর্টেলের কিউআরকোড টি রিড করাতে হবে। এনআইডি ওয়ালেট এর ব্যবহারের একটি ভিডিও টিউটোরিয়াল রয়েছে যা দেখে নিতে পারেন।

2 Replies to “সকলেরই থাকা প্রয়োজন এনআইডি পোর্টালের ইউজার একাউন্ট”

  1. Hello, all the time i used to check web site posts here in the early hours in the break of day, because i like
    to gain knowledge of more and more.

Comments are closed.