শরীরের বাড়তি মেদ ঝরানোর যাদুকারী ফর্মুলা

উপক্রমনিকা

হাইপার টেনশন, স্ট্রোকসহ নানা মরনব্যাধি দেখা দিতে পারে যদি শরীরে থাকে বাড়তি মেদ বা চর্বি। কারণ বাড়তি মেদ শিরা-উপশিরায় রক্তচলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃস্টি করে যার ফল হাইপার টেনশন, স্ট্রোকসহ নানা মরনব্যাধি।

কিভাবে দূর করা যায় এই বাড়তি মেদ

স্বাস্থ্য ঝুকি এড়াতে প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে নাস্তার আধাঘন্টা পূর্বে একগ্লাস হালকা গরম জলে এক চামচ আপেল ভিনেগার, আধাটা লেবুর রস ও এক চামচ মধু মিলিয়ে পান করলে কাজ করবে ম্যাজিকের মত। এতে একদিকে যেমন বাড়তি মেদ ঝরবে পাশাপাশি নতুন করে মেদ জমতে বাধা দিবে। এছাড়া এটি পান করলে শিরা উপশিরায় রক্তের সাথে চর্বি জমে থাকলে তা গলিয়ে বের করে দিয়ে রক্ষ প্রবাহিত হতে দিবে গতিশীলভাবে।

কেন এটি কাজ করে

কেন এটি এমনভাবে কাজ করবে তা একটু খেয়াল করলেই বোঝা যায়। গরম পানি তেল চর্বি পরিস্কার করে যার কারনে দাওয়াত খাওয়ার পর হাত ধুতে গরম পানি দিয়ে থাকে ওয়েটাররা, কাপড়ের তেল-ময়লা পরিস্কার করে ডিটারজেন্ট কোম্পানীগুলো লেবুর শক্তির কথা বলে বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। এছাড়া মুখের তেলতেলেভাব দূর করতে মধু মাখিয়ে রেখে কিছুক্ষণপর ধুয়ে ফেলতে বিউটি টিপস দেয় বিউটিশিয়ানরা। এছাড়া ভিনেগার তো চর্বি দূর করার ম্যাজিক্যাল উপাদান তা আমরা সবাই জানি।

++

দিনে ৫-৬ গ্লাস হালকা গরম পানি পান শরীরের জমে থাকা মেদ দূর করতে অনন্য‌। খুব সাধারণ জিনিস যা মেনে চলতে পারলে ফল পাওয়া যাবে অসাধারণ। এই চর্চা অব্যাহত রাখতে পারলে চির বিদায় নিবে কাশি, গলাব্যাথা, টনসিলের মত পিড়াদায়ক সমস্যাও। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এককোয়া কাচাঁ রসুন কামড়ে খেতে পারলে এবং হালকা হলেও একটু আধটু হাত পা ছুটোছুটি করে শারীরিক কশরত বা ব্যায়াম করে নিতে পারলে শরীর থাকবে চির সবুজ।

105 Replies to “শরীরের বাড়তি মেদ ঝরানোর যাদুকারী ফর্মুলা”

Leave a Reply

Your email address will not be published.