২০১৯ সালের আগস্ট মাসে সার্চ ইঞ্জিনে সর্বাধিক সার্চ কি ওয়ার্ড “কাশ্মিরী গার্ল”

ঘটনার সূত্রপাত

ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মীর ইস্যুতে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করে কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করা হয়েছে। গোটা ভারত জুড়ে এখন সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে পৃথিবীর ভূ-স্বর্গ খ্যাত কাশ্মীর এর মেয়েদের নিয়ে।

বিবেচ্য

ভারতের উত্তর প্রদেশের বিজেপি বিধায়ক বিক্রম সিং প্রকাশ্যে বলেন, “এখন থেকে ফর্সা-লম্বা কাশ্মীরি মেয়েদের সঙ্গে উত্তর প্রদেশসহ ভারতের যেকোনো রাজ্যের অবিবাহিত যুবকদের বিয়ে দেওয়া যাবে”। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার উদযাপনের অনুষ্ঠানে উত্তর প্রদেশের মোজফফর নগরের বিজেপি বিধায়ক বিক্রম সাইনি বলেন “এখন আমাদের দলের কর্মীরা সুন্দরী কাশ্মীরি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন। কাশ্মীরী মেয়ে বিয়ে করতে এখন আর কোনোও বাধা রইল না। যারা অবিবাহিত তারা তো এবার কাশ্মীরে বিয়ে করতে পারবেন। ভারত ও কাশ্মীরের নাগরিকত্ব আলাদা থাকায় কাশ্মীরের কোনো মেয়ে উত্তর প্রদেশের কোন ছেলেকে বিয়ে করলে সেক্ষেত্রে তার কাশ্মিরের নাগরিকত্ব বাতিল হয়ে যেত। কিন্তু এখন আর কোনো সমস্যা নেই, এখানকার মুসলিম পুরুষদেরও আনন্দ করা উচিত, এ নিয়ে সারা দেশে আনন্দ করা উচিত। ওখানকার মেয়েদের বিয়ে করুন; তিনি হিন্দু বা মুসলমান যেই হোন।”

কাশ্মীরি গার্ল কেন সার্চ ইঞ্জিনের সর্বাধিক সার্চ কি ওয়ার্ড

তবে শুধু বিক্রম সিং নয়, ভারতের অবিবাহিত পুরুষরা এখন কাশ্মীরি লম্বা-ফর্সা মেয়েদের নিজেদের জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল উদযাপনের অনুষ্ঠানে বিজেপির নেতার কাশ্মীরি মেয়েকে বিয়ের আহ্বানের পরই গুগলে ‘কাশ্মীরি গার্ল’ ও ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ সার্চ শুরু হয়। এর জন্য ভারতে গুগল সার্চ ট্রেন্ড এর শীর্ষে উঠে এসেছে “কাশ্মীরি গার্ল”, “কাশ্মীরি গার্লস”, “ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল” বা “কাশ্মিরী মেয়ে বিয়ে” শব্দ সমূহ।

গুগলে ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ লিখে সবচেয়ে বেশি সার্চ হয়েছে ভারতের শিক্ষিত রাজ্য বলে খ্যাত কেরালার পুরুষরা বেশি সার্চ করেছেন। এর পরেই রয়েছে ভারতের কর্ণাটক রাজ্য। তারপর রয়েছে দিল্লি, মহারাষ্ট্র, তেলেঙ্গানা, পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু ও উত্তর প্রদেশ।

গুগলের সার্চিং ট্রেন্ড বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের ফলে কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা উঠে যাওয়ার ফলে কাশ্মীরি মেয়েদের সহজলভ্য ভাবতে শুরু করেছেন অনেকেই। কাশ্মীরি মেয়েরা অন্য রাজ্যের পুরুষদের বিয়ে করলে জম্মু-কাশ্মীরের নাগরিকত্ব হারানোর পাশাপাশি তাঁদের মা-বাবার সম্পত্তির অধিকার হারাতে হতো।

কিন্তু ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের পর আর বাধা আর থাকল না। এখন কাশ্মীরি মেয়েদের বিয়ে করলে সব সুযোগ-সুবিধা বহাল থাকবে। ভারতের অনেকে পুরুষের কল্পনার রাজ্যে কাশ্মীরি মেয়ে বিয়ের স্বপ্ন ছিলো সে স্বপ্ন এখন বাস্তব হওয়ার অপেক্ষা করছে বহু ভারতীয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কাশ্মীরের মেয়ে খোঁজার ব্যাপারটি এখন সারা ভারত জুড়ে চাউর।

তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস, এনডিটিভি ও নিউজ এইটিন